মানবিক ‘স্ত্রী অমানবিক’ হয়ে ‘১৩ লাখ টাকা ও সোনা’ নিয়ে পালিয়ে গেলেন

ফেনীতে ১৩ লাখ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে এক পিকআপ চালকের স্ত্রী পালিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই নারীর নাম রাবেয়া আক্তার রাবু (২৯)।

২০১২ সালে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করে খাওয়া মা-বাবা ও স্বজনহীন রাবুকে মানবিক কারণে বিয়ে করেছিলেন পিকআপ চালক জুয়েল (৩৫)। টাকা-পয়সা খুইয়ে এ বিষয়ে ফেনী মডেল থানায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি।






জুয়েলের ভাষ্যমতে, ২০১২ সালে চট্টগ্রাম ২ নম্বর গেট এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন পিকআপ চালক জুয়েল। ওই সময় রাবু বিভিন্ন বাসাবাড়িতে কাজ করতেন। জুয়েল তাকে টাকা-পয়সা ও বিভিন্ন প্রকারের খাদ্যসামগ্রী কিনে দিয়ে সহায়তা করতেন। এক পর্যায়ে ঠিকানা ও স্বজনদের পরিচয় জানতে চাইলে রাবু জানান, পৃথিবীতে তার কোনো স্বজন নেই। ছোটবেলায় মা-বাবা মারা যাওয়ার পর থেকে রাবু মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করে খাবার জোগান।

বিষয়টি জানতে পেরে তাকে মানবিক কারণে ৫০ হাজার টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেন জুয়েল। এক পর্যায়ে জুয়েলের গ্রামের বাড়ি ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের সিকদার বাড়িতে নিয়ে এসে সংসার শুরু করেন। সেখানে তাদের দুই সন্তান হয়।






সোমবার (১৭ মে) জুয়েল বাড়িতে আসলে জানতে পারেন তার স্ত্রী চলে গেছেন। পরে স্থানীয়রা জানান, রাবু বিভিন্ন সময় আশপাশের লোকজনের কাছ থেকে প্রায় ৮ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে ফেরত দেননি। এছাড়া তিনি সন্তানদের জন্য ব্যাংকে জমা রাখবেন বলে অন্তত পাঁচ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। পালিয়ে যাওয়ার সময় স্বর্ণালঙ্কারও নিয়ে গেছেন রাবু।

এ বিষয়ে পাঁচগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক বলেন, ‘রাবেয়া আক্তার নামের এক গৃহবধূ মানুষের থেকে টাকা নিয়ে পালিয়েছেন বলে পরিবহন শ্রমিক জুয়েল তাকে জানিয়েছেন। কিন্তু এ বিষয়ে অন্য কেউ আমার কাছে কোনো অভিযোগ দেননি।’

অভিযোগে

About অনলাইন ডেস্ক

View all posts by অনলাইন ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *