৭৫ বছর বয়সে এসে ‘আট বিষয়ে’ মাস্টার্স,করতে চান ‘পিএইচডিও’

বয়স একটা সংখ্যা মাত্র। সেই সংখ্যা বাধা হতে পারে না মনের অদম্য ইচ্ছাশক্তির কাছে। কথায় আছে, শেখার কোনো বয়স নেই। তাইতো ৭৫ বছর বয়সী এম গণেশ নাদের পড়ালেখাকে শুরু করেছেন জীবনের অন্তিম বয়সে। গণেশ চাকরি থেকে অবসরের পর আটটি বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। সমাজবিজ্ঞান নিয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের প্রস্তুতিও নিচ্ছেন তিনি।






দরিদ্র এক পরিবারে জন্ম ও বেড়ে ওঠা গণেশের। ভারতের তামিলনাড়ুর তিরুচেন্দুরের অরুমুগানেড়ির বাসিন্দা তিনি। মা-বাবা কৃষি কাজ করতেন। ফলে সেই সময় তারা গণেশের উচ্চশিক্ষার জন্য কোনো উদ্যোগ নিতে পারেননি। অভাবের কারণে পড়াশোনা করেছেন সামান্য।

১৯৬৫ সালে দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় কোনো রকমে উত্তীর্ণ হন তিনি। ১৯৭৪ সালে ভারতের সাউদার্ন পেট্রোকেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশনে চাকরি জীবন শুরু করেন। ২০০৪ সালে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন তিনি। এই বয়সে বেশিরভাগ অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা যেখানে শুয়ে-বসেই জীবন কাটাতে আগ্রহী; সেখানে গণেশ সেরকম কিছু করেননি।






চাকরি থেকে অবসর গ্রহণের পর স্নাতকোত্তর পড়াশোনা শুরু করে দিয়েছিলেন। বর্তমানে তার চার সন্তান ও ছয় নাতি-নাতনি রয়েছে। এমনকি নাতনির পরিবারেও সন্তানের জন্ম হয়েছে। অবসরের পর গণেশ প্রথমে ইংরেজি নিয়ে পড়াশোনা করেন। এরপর ২০০৮ সালে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতক শুরু করেন। ২০১১ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে গণেশ সমাজবিজ্ঞান, ইতিহাস, পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, মানবাধিকার, সমাজকর্ম, অর্থনীতি এবং তামিল ভাষায় ডিগ্রি অর্জন করেন।

পড়াশোনা করার ইচ্ছা গণেশের মনে ছোটবেলা থেকেই রয়েছে। তবে অভাবের কারণে তা হয়ে ওঠেনি। জীবিকা নির্বাহ করেছেন চাকরি করে। তবে কর্মক্ষেত্রে কয়েকবার কম পড়াশোনার জন্য অপমানিত হতে হয়েছে তাকে। তখন পড়াশোনার জেদ আরো মাথায় চেপেছে। তাই তো চাকরি থেকে অবসরে এসে বসে থাকেননি। নিজের মনের তাগিদে পড়াশোনা শুরু করেন।






তামিলনাড়ুর উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে পিএইচডি করার আবেদন করার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য গণেশের প্রচেষ্টার প্রশংসা করে চিঠি লিখেছেন। এই ডিসেম্বরে একটি প্রবেশিকা পরীক্ষায় অংশ নিতে বলা হয়েছে তাকে। গণেশ সরকারের কাছে অনুরোধ করছেন, তার বয়স ও ইচ্ছের কথা বিবেচনা করে প্রবেশিকা পরীক্ষা ছাড়াই যেন পিএইচডি করার অনুমতি

About অনলাইন ডেস্ক

View all posts by অনলাইন ডেস্ক →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *